প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:  উত্তরা ও পল্লবীর পর এবার মতিঝিলে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পোস্টার লাগালেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রবিবার (০৮ সেপ্টেম্বর) রাত ১টার সময় তিনি মতিঝিলের শাপলা চত্বর ও এর আশপাশের এলাকায় খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি সম্বলিত পোস্টার লাগান।

 

 

 

 

বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া প্রায় ১৯ মাস ধরে কারাগারে বন্দী। দলীয় প্রধানের মুক্তির দাবিতে নানারকম কর্মসূচি পালন করেছে নেতাকর্মীরা। দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী রাজধানীর নয়াপল্টনে, প্রেসক্লাব, শান্তিনগর, কাকরাইল, মতিঝিল, শাহবাগ, এলিফেন্ট রোড, বনানী, উত্তরা, শ্যামলী, কল্যানপুর, পুরান ঢাকাসহ প্রায় শতাধিক স্পটে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।

 

 

 

 

এবার তিনি নিজেই প্রিয় নেত্রীর মুক্তির দাবিতে পোস্টার টানাতে রাস্তায় নেমে পড়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত ১টা থেকে ৩ টা পর্যন্ত খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীর উত্তরায় মূল সড়কের পাশে, অলিতে গলিতে পোস্টার লাগিয়েছেন তিনি। পরদিন শুক্রবার পল্লবীতে পোস্টার লাগাতে গিয়ে রিজভীর সাথে থাকা বিএনপির তিন কর্মীকে সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা মারধর করার পর পুলিশ আটক করে বলে অভিযোগ করা হয়।একদিন বিরতি দিয়ে রুহুল কবির রিজভী আবার পোস্টার লাগাতে বেরিয়ে পড়েন।

 

 

 

 

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী রোববার মতিঝিলের শাপলা চত্বরের পাশে বাংলাদেশ ব্যাংকের দেয়াল, আশপাশের অন্যান্য ভবনের দেয়ালে এবং পাশের এলাকাগুলোতে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি সম্বলিত পোস্টার লাগান। সাদা কালো রঙের যে পোস্টারে খালেদা জিয়ার ছবি এবং পাশে লেখা খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই।

 

 

 

 

 

এ বিষয়ে রুহুল কবির রিজভী বলেন, আমাদের প্রাণের প্রিয় নেত্রী, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী, চারবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে বর্তমান অবৈধ সরকার মিথ্যা মামলায় প্রায় ১৯ মাস ধরে কারাগারে বন্দী করে রেখেছে। তাকে জামিন দেয়া হচ্ছে না।

 

 

 

 

 

তিনি প্রচণ্ড অসুস্থ কিন্তু পছন্দমত চিকিৎসা পর্যন্ত নিতে দেয়া হচ্ছে না। আমরা সরকারের এই প্রতিহিংসামূলক আচরণে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছি। মিছিল, সভা সমাবেশে তার মুক্তি দাবি করছি। এবার তার মুক্তির দাবিতে পোস্টার বের করা হয়েছে।