প্রথমবার্তা প্রতিবেদক: সাভারের আশুলিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওষুধ ব্যবসায়ীকে কিল-ঘুষি মারায় পুলিশের এক সহকারী উপপরিদর্শককে (এএসআই) রড দিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই ওষুধ ব্যবসায়ীসহ দুইজনকে আটক করে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে পুলিশ। গতকাল বুধবার দুপুরে আশুলিয়ার জামগড়া চৌরাস্তা এলাকার মৃধা ফার্মেসিতে এ ঘটনা ঘটে।

 

 

 

 

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে সিভিল পোশাকে শিল্প পুলিশ-১ এর এএসআই মাহমুদ হাসান (৩২) ‘অ্যাবসল’ নামে একটি ক্রিম নিয়ে জামগড়া এলাকার ওষুধ ব্যবসায়ী আল আমিন মৃধার (২৮) ফার্মেসিতে যান। পরে ফার্মেসির সেলসম্যান খাদেমুলের কাছে ক্রিমটির কার্যকারিতা জানতে চান তিনি। কিন্তু ডাক্তার ছাড়া এর কার্যকারিতা সম্পর্কে কিছুই বলতে পারবেন না বলে জানান ফার্মেসির সেলসম্যান খাদেমুল। এতে এএসআই মাহমুদ ক্ষিপ্ত হয়ে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন ও একপর্যায়ে খাদেমুলকে ঘুষি মারেন।

 

 

 

 

এতে আল আমিন বাধা দিলে তাকেও কিল-ঘুষি মারতে থাকেন মাহমুদ। এ সময় আল আমিন দোকানে থাকা লোহার রড দিয়ে এএসআই মাহমুদকে পিটুনি দেন। এতে মাহমুদ হাতের কব্জিতে ব্যথা পান। পরে তার দেয়া খবরে ২/৩ গাড়ি শিল্প পুলিশ ফার্মেসিতে গিয়ে খাদেমুল ও আল আমিনকে মারধর করে এবং আটক করে শিল্প পুলিশের শ্রীপুর হেড কোয়ার্টারে নিয়ে যায়।

 

 

 

 

ব্যবসায়ীরা জানান, পুলিশের এএসআই মাহমুদুল হাসানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা ২/৩টি গাড়িতে এসে দোকানে হামলা চালায় এবং আল আমিন ও খাদেমুলকে ব্যাপক মারধর করে । তাদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় প্রথমে স্থানীয় নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পরে সেখান থেকে তাদের আটক করে নিয়ে যায় শিল্প পুলিশ। পরে তাকে থানায় সোপর্দ করে সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগ মামলা করেছে পুলিশ।

 

 

 

 

এ বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে শিল্প পুলিশ-১ এর পুলিশ সুপার সানা সামিনুর রহমান বলেন, সরকারি কাজে বাধা দেয়ার তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।