প্রথমবার্তা প্রতিবেদক: হিমেশের ছবিতে গাওয়া রানু মণ্ডলের ‘তেরি মেরি কাহানি’, গানটি বুধবারই প্রকাশ্যে এনেছেন ছবির নির্মাতারা। ভিডিওটি প্রকাশ্যে আসার সঙ্গে সঙ্গেই তা ইন্টারনেট দুনিয়ায় তা ছড়িয়ে পড়ে। অনেক লোকজনই রানুর গানের গলার প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

 

 

 

 

এরই মাঝে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সামনে এসেছে রানু মণ্ডলের আরও একটি ভিডিও। যেখানে রানু মণ্ডলের সঙ্গে গান গাইতে শোনা যাচ্ছে তাঁর মেয়ে এলিজাবেথ সাথী রায়কে। ভিডিওতে রানু ও তাঁর মেয়ে সাথীকে ১৯৬৮ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ব্রহ্মাচারী’ ছবি থেকে মহম্মদ রফির গাওয়া ”আজকাল তেরে মেরে প্যায়ার কে চর্চে” গানটি গাইতে শোনা গেছে। ইনস্টাগ্রামে ভিডিওটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গে এর ভিউ ১০ হাজার ছড়িয়েছে। ভিডিওর নিচে রানু ও তাঁর মেয়ের প্রশংসা করে কমেন্টও করেছেন অনেকেই।

 

 

 

 

এদিকে এটা প্রথম নয়, এর আগে নিজের ফেসবুক পেজে ‘এক প্যায়ার কা নাগমা হ্যায়’ গানটি গেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন সাথী রায় নিজেই। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগে সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রানুর মেয়ে সাথী দাবি করেছিলেন, তাঁর বিরুদ্ধে মাকে দেখাশোনা না করার যে অভিযোগ উঠেছে তা একেবারেই মিথ্যা। সাথীর কথায় তিনি নাকি জানতেই না তাঁর মা স্টেশনে গান গাইতেন।

 

 

 

 

 

তিনি জানান, বেশকিছুদিন আগে তিনি তাঁর মাকে ধর্মতলাতে দেখেন, তখন তিনিই ২০০ টাকা দিয়ে রানুদেবীকে বাড়ি ফিরে যেতে বলেন। প্রতি মাসে মায়ের জন্য এক আত্মীয়র কাছে ৫০০ টাকা করে পাঠাতেন বলেও জানান রানুর মেয়ে। স্বাতী রায় আরও জানান, তিনি বিবাহবিচ্ছিনা সিউরিতে একটা ছোট দোকান চালান। তাঁর এক সন্তান রয়েছে

 

 

 

 

 

তবুও যতটা সম্ভব তিনিই তাঁর মায়ের দেখাশোনা করতেন। তিনি তাঁর মাকে বেশ কয়েকবার তাঁদের সঙ্গে এসে থাকতে বলেছিলেন, তবে রানু মণ্ডলই রাজি হননি বলে দাবি স্বাতীর।