10 / 100 SEO Score

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:   বাংলাদেশে ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে প্রস্তুত সংযুক্ত আরব আমিরাতের বেশ কয়েকটি ব্যবসায়িক গ্রুপ।রবিবার দুবাইয়ে বিনিয়োগ নিয়ে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ফোরামের সম্মেলন অনুষ্ঠানের আগের দিন আজ শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানান।

 

 

 

 

সম্মেলনে তিন শতাধিক সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী নেতা, বিনিয়োগকারী এবং উদ্যোক্তারা অংশ নেবেন। একদিনের সম্মেলনের লক্ষ্য সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের প্রবাহকে আরও জোরদার করা।

 

 

 

 

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান বাংলাদেশ ইকোনোমিক ফোরামের দ্বিতীয় অধিবেশনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করবেন। তিনি একটি ২০ সদস্যের সরকারি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন।

 

 

 

 

প্যান এশিয়া মিডিয়ার মতে, ২০১৮ সালে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ছিল ৭.৯ শতাংশ। এই প্রবৃদ্ধির পরিমাণ আরও বাড়ানোর সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। আগামী কয়েক বছরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আট শতাংশ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

 

 

 

 

সালমান এফ রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশ বিদেশি বিনিয়োগ সরাসরি পেতে আগের তুলনায় অনেক বেশি প্রস্তুত। গত বছর ৬৯ শতাংশ বিনিয়োগ বেড়ে ৩ দশমিক ৬১ বিলিয়ন ডলার পৌঁছে গেছে। আমরা দেখছি চীন, জাপান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বড় বিনিয়োগ আসছে। আমাদের বিশ্বাস, জিসিসির দেশগুলো, বিশেষত সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের স্বল্প ব্যয়, পরিচালনা এবং উচ্চতর রিটার্নের সুযোগ গ্রহণ করা উচিত।’

 

 

 

 

সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ ইমরান বলেন, ‘এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিন দিনের সফরে যান। তখন সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশের জ্বালানি, বন্দর, বিদ্যুৎ ও অবকাঠামো খাতে যে ১০ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করবে। তার সঙ্গে বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এই বছর নতুন স্তরে পৌঁছাবে।’

 

 

 

 

সংযুক্ত আরব আমিরাত বাংলাদেশের সঙ্গে একটি বন্দর, তরল প্রাকৃতিক গ্যাস, এলএনজি, টার্মিনাল, বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন ও সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেছে।

 

 

 

 

রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ ইমরান আরও বলেন, ‘এই বিনিয়োগগুলো বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে জোরদার করবে এবং আমাদের অর্থনৈতিক সম্পর্ককে কৌশলগত অংশীদারিত্বের স্তরে আরও গভীর করবে।’