6 / 100 SEO Score

প্রথমবার্তা, রিপোর্ট:   ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের কাকরাইলের কার্যালয়ে অভিযান শেষ করে রেব করলে তাকে ঘিরে মিছিল করে অনুসারীরা। পরে র‌্যাব পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।এ সময় সম্রাট সমর্থক যুবলীগের শতাধিক নেতাকর্মী বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পরে র‌্যাব তাকে নিয়ে র‌্যাবের গাড়ির বহর কেরাণীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের দিকে যায়।

 

 

 

 

 

রোববার দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে তালা ভেঙে সম্রাটের কার্যালয়ে ঢুকে অভিযান শুরু করে। সন্ধ্যা ৬ টায় অভিযান শেষ করে সংবাদ সম্মেলন করা হয় র‌্যাবের পক্ষ থেকে।

 

 

 

 

 

 

র‌্যাব জানায়, কার্যালয়টি থেকে অবৈধ অস্ত্র, ছয় রাউন্ড গুলি, ম্যাগাজিন, দুটি ক্যাঙ্গারুর চামড়া, বিদেশি মদ, ১১শ ইয়াবা, নির্যাতন করার ইলেকট্রিক যন্ত্র, চাকু, লাঠি উদ্ধার করা হয়।

 

 

 

 

বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে সম্রাটকে ৬ মাসের সাজা দিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত। ভ্রাম্যমাণ আদালতটি পরিচালনা করে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম।

 

 

 

 

 

এছাড়া আরমানকে মদ্যপ অবস্থায় পাওয়ায় তাকেও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। সূত্র জানায়, তাকে কারাদণ্ড দেয়ায় জেলখানায় দিকে নিয়ে যায় র‌্যাব সদস্যরা।

 

 

 

 

 

এর আগে ভোর ৫টার দিকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রাম থেকে সম্রাটকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার সহযোগী আরমানকেও গ্রেফতার করে র‌্যাব। পরে তাদেরকে যুবলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।