নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রথম বার্তা (রাইসুল ইসলাম): মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডের সাজার বিরুদ্ধে সাবেক কৃষি প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের করা আপিলের রায় আজ মঙ্গলবার। আপিল বিভাগের কার্যতালিকার এক নম্বরে রয়েছে মামলাটি। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ এ রায় ঘোষণা করবেন। গত বছর ৩ ডিসেম্বর আপিল বিভাগে শুনানি শেষে রায়ের জন্য ১৪ জানুয়ারি দিন নির্ধারণ করেছিলেন আপিল বিভাগ।

 

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ২০১৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর এক রায়ে কায়সারকে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ড দেয়। এই রায়ের বিরুদ্ধে কায়সারের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ১৯ জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আপিল করেন কায়সার। আপিলে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে খালাস চান তিনি।

 

কায়সারের বিরুদ্ধে গণহত্যার একটি, হত্যা, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠনের ১৩টি এবং ধর্ষণের দুটিসহ মোট ১৬টি অভিযোগ আনা হয়। ২০১৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। কায়সারকে গণহত্যার একটি, হত্যা, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠনের ১৩টি এবং ধর্ষণের দুটিসহ মোট ১৬টি মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত করা হয়। এরপর সাক্ষ্যগ্রহণ ও যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে যেকোনো দিন রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমান রাখা হয়।

 

এরপর ২০১৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর রায় দেওয়া হয়। রায়ে ১৬টি অভিযোগের মধ্যে ট্রাইব্যুনালে ১৪টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়। এর মধ্যে সাতটি (৩, ৫, ৬, ৮, ১০, ১২ ও ১৬ নম্বর) অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড, চারটি (১, ৯, ১৩ ও ১৪ নম্বর) অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ড, একটি (২ নম্বর) অভিযোগে ১০ বছর, একটি (৭ নম্বর) অভিযোগে সাত বছর এবং একটি (১১ নম্বর) অভিযোগে পাঁচ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এছাড়া দুটি (৪ ও ১৫ নম্বর) অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় এ দুটি অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেওয়া হয়।

 

২০১৩ সালের ১৫ মে প্রসিকিউশনের আবেদনের ভিত্তিতে কায়সারের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে ট্রাইব্যুনাল। ২১ মে বিকাল রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করে হাজির করা হলে ট্রাইব্যুনাল তাকে কারাগারে পাঠায়। এরপর ওই বছরের ৫ আগস্ট শর্ত সাপেক্ষে জামিন পেয়ে ঢাকায় ছেলের বাসায় ছিলেন কায়সার। তবে ট্রাইব্যুনালের রায় ঘোষণার পর সেদিনই তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। সেই থেকে তিনি কারাবন্দি।

এই বিভাগের আরো খবর :

নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্র থেকে অনেক পর্যবেক্ষক আসবেন: এইচ টি ইমাম
সুস্থ কাঁধের জন্য ব্যায়াম
চলতি মাসেই বাংলাদেশের সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করতে পারবে ভারত
দুই ভাইয়ের লড়াই জমে উঠেছে.....
দুদকের একার পক্ষে দুর্নীতি বন্ধ সম্ভব নয় : ইকবাল মাহমুদ
সুনামগঞ্জ পৌরসভার উপনির্বাচনে সংঘর্ষে এনএসআইয়ের কর্মকর্তাসহ আহত ১০
খুললেই বিপদ ‘উইশ ফর ইউ’!
অল্প বয়সী মেয়ে বা নারীদের কি যৌনকেশ নিয়মিত কামিয়ে ফেলা উচিত?
ছবির জন্য আমার মত অনেককে বিছানায় যেতে বলা হয়
সেবা না দিলে চিকিৎসকদেরও ওএসডি করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
এবার ভাইরাল হতে চায় জোভান!
নারায়ণগঞ্জবাসী সাহসী আইভীকে দেখেছে : আইভী
আর্সেনিক দূর করে এই উদ্ভিদ
মা খুব বাজে বাজে পিক পাঠায়: সেগুলো দেখে আমি…
১৪ দল আগামী নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধভাবে অংশ গ্রহণ করবে : সমাজকল্যাণমন্ত্রী