প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: পাকিস্তান ক্রিকেটে সততা নিয়ে কেউ যেন কিছু না বলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার এ কথা বলে বড়সড় বোমা ফাটালেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ক সালমান বাট।

 

 

 

কয়েক দিন আগেই শাহিদ আফ্রিদিসহ বেশ কয়েকজন প্রাক্তন ও বর্তমান পাক ক্রিকেটার দাবি তুলেছিলেন, দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত খেলোয়াড়দের চিরনির্বাসনে পাঠানো হোক।

 

 

 

বিশেষজ্ঞদের অনুমান, বাটের এই মন্তব্যের লক্ষ্য হয়তো সেই প্রতিবাদী ক্রিকেটারেরাই। ২০১০ সালে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের ইংল্যান্ড সফরে স্পটফিক্সিংয়ের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় পাঁচ বছর নির্বাসিত ছিলেন বাট।

 

 

 

 

এদিন পাকিস্তানের গণমাধ্যমে বাট বলেন, ‘বুঝতে পারছি না, এই বিষয়টি নিয়ে সবাই নিজের মত দিচ্ছেন কেন? এ প্রসঙ্গে একমাত্র বলার অধিকার রয়েছে আইসিসি ও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের।

 

 

 

 

অনেক ক্রিকেটার দল থেকে বাদ পড়ে ভালো পারফরম্যান্স না করেও আকষ্মিকভাবে দলে ফিরেছেন অতীতে। এই ঘটনাগুলো কি দুর্নীতি নয়? পাকিস্তান ক্রিকেটে কে যে সৎ! দুর্নীতি নিয়ে কেউ যেন কথা বলতে না আসে।’

 

 

 

 

তিনি আরো বলেন, ‘শাস্তি পাওয়ার অর্থ সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটার নতুনভাবে সব কিছু শুরু করছে। অন্যদের মতোই তার সঙ্গে ব্যবহার করা যায়। যোগাযোগের সুবাদে যারা ভালো না খেলেও দলে ঢোকে, সেটা কি অপরাধ নয়?’