প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ প্রচণ্ড গরমের মধ্যে এসেছে রমজান। তার মধ্যে রয়েছে করোনার ভয়। চিকিৎসকরা বরাবরই বলে আসছেন, কম মসলাযুক্ত রান্না ও পানি জাতীয় খাবার বাড়াবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। রমজানের খাবার তালিকায় পুষ্টিবিদরা প্রাধান্য দিচ্ছেন স্বাস্থ্যকর খাবারকে। শাতিলা শারমিনের রিপোর্ট।

 

 

চলে এসেছে মুসলমানদের পবিত্র মাস মাহে রমজান। ঘরে ঘরে চলছে ইফতার ও সেহেরির প্রস্তুতি। করোনার এই সময়ে তেলে ভাজা বা গুরুপাক খাবার শরীরের জন্য যেমন স্বাস্থ্যকর নয়, তেমনি পানিশূণ্যতা বাড়িয়ে বাড়াতে পারে স্বাস্থ্যঝুঁকিও।

 

 

পুষ্টিবিদদের মতে, ইফতারসহ খাবার গ্রহণে শাক-সবজি বেশি পরিমাণে রাখার। এছাড়া, দিনের দীর্ঘ সময় ধরে রোজা রাখার পরে, আমিষের চাহিদা পূরণে শিম জাতীয় খাবার গুরুত্বপূর্ণ। সীম, মটরশুটি, ডাল হতে পারে। বাদাম সব সময়ের জন্যই উপকারী।

 

 

তাজা ফলের পাশাপাশি আম, কমলা, আনারস, তরমুজ, শসার জুস শরীরে পানির চাহিদা পূরণ করতে পারে। আমিষের জন্য মাছ, মাংস না ভেজে বেকিং, গ্রীল বা স্টিম বা কম তেলে রান্নার পরার্মশ পুষ্ঠিবিদদের।

ভাজাপোড়া খাবার তা সে ধরনের হোক না কেন পরিহার করা উচিত। পুষ্টিবিদরা বাদ দিতে বলছেন বেগুনি, পিয়াজু বা মাংসের কাবার।