প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ মহামারি কোভিড-নাইনটিন বা করোনা ভাইরাস বিশ্বব্যাপী আতঙ্কের নাম। তবে এ ভাইরাস প্রথম শনাক্ত হওয়া চীনে এখন জীবনযাত্রা একেবারেই স্বাভাবিক। করোনা জয় করে, সামনের দিকে এগোচ্ছে দেশটি। চীনে থাকা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা নিরাপদে ছিলেন করোনা মোকাবিলার সময়টায়। তারাই শোনালেন চৈনিকদের সাফল্যের পেছনের গল্প। চীনের মাঠগুলোতে ফিরেছে খেলা। করোনার ভয় জয় করে, দেশটির বাসিন্দারা এখন, স্বাভাবিক জীবন যাপন করছেন।

 

 

করোনা মোকাবিলায় চীনের একটি বড় সাফল্য, বিদেশি শিক্ষার্থীদের রোগমুক্ত রাখতে পেরেছে তারা। গেলো কয়েক মাসের লকডাউনের সময়ে বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়া হয়েছে খাবার। অনলাইনে পড়াশোনা চালু থাকায়, শিক্ষার কোনো স্তরেই সৃষ্টি হয়নি সেশনজট।

 

 

চীনে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী শবনম জেবি বলেন, বের হওয়া যাবে না মানে বের হওয়া যাবে না। যখন কোয়ারেন্টাইন ছিল আমরা দেখেছি পরিবারের একজন সদস্য সপ্তাহে একদিন বাজার করতে পারবে তাও প্রপার সেফটির মাধ্যমে। এবং সেটাই সবাই মেনে চলেছে। আমরা এখনও কেউ বের হতে পারি না। কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বই হচ্ছে আমাদের সুরক্ষা রাখা। চীনে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী হেলাল খান বলেন, খাবারের সমস্যা নেই অনলাইনে কেনাকাটা করে খাই।

 

 

চীনে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী আব্দুল আউয়াল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যান্টিন খুলে দেয়া হয়েছে। আমরা ভালো আছি। করোনা মোকাবিলায় যখন হিমশিম খাচ্ছে ইউরোপ-আমেরিকা, তখন চীন ভাইরাস প্রতিহত করে অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করার দিকে হাঁটছে। দ্রুত স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়ন ঘটিয়ে, পণ্য উৎপাদন, অনলাইন কেনাকাটায় জোর দিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল এ দেশটি।