প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ    ফেসবুক কনটেন্ট নজরদারি কমিটির অন্যতম সদস্য তাওয়াক্কুল কারমান মুসলিম ব্রাদারহুডের লোক!  মিডিল ইস্ট মিডিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এমইএমআরআই) ও আরো কয়েকটি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, ইয়েমেনের নোবেল জয়ী এ নারীর সঙ্গে ব্রাদারহুডের সম্পর্ক রয়েছে এবং তিনি ব্রাদারহুডের প্রতি সমর্থনও ব্যক্ত করেছেন।

 

 

গত বুধবার ২০ সদস্যের এ কমিটির নাম ঘোষণা করে ফেসবুক। সামাজিক মাধ্যমটি কোন ধরনের কনটেন্ট সরিয়ে ফেলবে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবে এ কমিটি। ভুয়া খবর বা আপত্তিকর লেখা, ছবি, ভিডিও যাতে না ছড়ায় সে ব্যাপারে বেশ কয়েক বছর ধরেই সতর্ক ফেসবুক। ২০১৮ সালেই ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ এই ধরনের একটি প্যানেল গঠনের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন। বুধবার তা বাস্তবায়িত হয়েছে।

 

 

ইয়েমেনের নোবেলজয়ী ও মানবধিকার কর্মী তাওয়াক্কুল কারমান। আরব অভ্যুত্থানে ভূমিকা রাখায় তিনি পুরস্কৃত হয়েছেন। ফেসবুকের একজন বোর্ড সদস্য হিসেবে তিনি কিছু ক্ষমতা পাবেন কোন ধরনের কনটেন্ট যাবে তা নির্ধারণের ক্ষেত্রে।

 

 

কিন্তু এখন তাকে নিয়েই বিতর্ক উঠেছে। তার সঙ্গে মুসলিম ব্রাদারহুডের লিংক বা সম্পর্ক পাওয়া যাচ্ছে। অথচ সৌদি আরব, রাশিয়া এবং বাহরাইনসহ অনেক দেশের কাছেই এটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচিত।

 

 

২০১১ সালে কারমান যখন শান্তিতে নোবেল পান তখন ইয়েমেনে ব্রাদারহুডের পক্ষ থেকে তাদের ওয়েবসাইটে কারমানকে অভিনন্দন জানানো হয় এবং তাকে নিজেদের একজন সদস্য হিসেবে পরিচয় দেয়া হয়।

 

 

এছাড়া কারমান মুসলিম ব্রাদারহুডের পক্ষে প্রকাশ্যে বিবৃতিও দিয়েছেন। এমইএমআরআই এর এক রিপোর্টে বলা হয়, ২০১৩ সালে বিবিসি এরাবিককে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল আপনি কি মুসলিম ব্রাদারহুডকে সমর্থন করেন? উত্তরে তিনি বলেন, ‘আপনি কি শুনতে চান, হ্যাঁ আমি ব্রাদারহুডকে সমর্থন করি।’