প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ    আফ্রিকার বিভিন্ন অঞ্চলে পুরুষরা অনেকটা মেয়েদের মত মাথা ও মুখ ঢাকেন৷ শতাব্দী ধরে চলে আসছে এ প্রথা৷ খবর ডয়চে ভেলের।

 

 

লিবিয়া
আফ্রিকা মহাদেশের সাহারা মরুভূমি এবং সাহিল জোনে যাযাবর সম্প্রদায়ের তুয়ারেগ গোষ্ঠীর মানুষ এমন পাগড়ি পরে কাপড়ে মুখ ঢাকেন৷ তবে কেবল সূর্যের তাপ বা বালি থেকে বাঁচা এর উদ্দেশ্য নয়, এভাবে মাথা ও মুখ ঢাকা এখানে সম্মানের অংশ৷

 

 

তুয়ারেগ পুরুষরাই কেবল পুরো মুখ ঢাকেন৷ তাদের বিশ্বাস, মরুভূমিতে চলাফেরার সময় মৃত আত্মাদের হাত থেকে এটি তাদের রক্ষা করে৷ ঐতিহ্যগত ভাবে তারা সাদা কাপড়ে নীল রঙ করে পাগড়ি পরেন৷ এ কারণে তাদের বলা হয় মরুভূমির ‘নীল মানব’৷

 

মরক্কো
মরক্কোর বর্বর উপজাতির পুরুষদের মাথার পাগড়ি এবং মুখবন্ধকে প্রথাগতভাবে বলা হয় ‘তাগেলমুস্ট’ বা ‘লিথাম’৷ তবে এরা বেশিরভাগ হলুদ লিথাম পরে৷ অতীতে লড়াইয়ের সময় বর্বররা এভাবে মাথা মুখ ঢেকে রাখলে তাদের সহজে চেনা যেত না৷

 

 

মিশর
তুয়ারেগ এবং বর্বরদের মত বেদুঈনও মরুভূমির যাযাবর হিসেবে পরিচিত৷ প্রতিবেশি দেশ ইসরায়েল ও মিশরের মাঝে আরব উপত্যকায় এদের বাস৷ ছবিতে দেখা এই পাগড়ি ও মুখবন্ধকে বলা হয় ‘কুফিয়া’৷ কোথাও কোথাও বলে ঘুত্রা বা হাত্তা৷ তবে এলাকা ভিত্তিতে এটা পরার ভঙ্গি ভিন্ন হয়৷

 

 

শাদ
শাদের উত্তরাঞ্চলে টুবু উপজাতির পুরুষরা মাথা মুখ ঢাকেন কাপড় দিয়ে৷ এই পুরুষরা নিজেদের কাপড় নিজেরাই বুনেন৷ এরা সাধারণত মেষপালক৷

 

 

 

নাইজেরিয়া
নাইজেরিয়ার কানো রাজ্যে পুরুষেরা অনেকটা বোরকার মত মাথা ও মুখ ঢাকেন৷ এখানে কানো’র আমিরকে দেখা যাচ্ছে, নাইজেরিয়ায় সুলতানের পরেই ক্ষমতাধর মুসলিম নেতা তিনি৷