প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ  ছয় বছর আগে মিরপুর গ্রাউন্ডে শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সাকিব আল হাসানের এক অকল্পনীয় কাণ্ডে হতভম্ব হয়েছিল গোটা ক্রিকেটবিশ্ব।সেদিন ড্রেসিংরুমে বসে টিভি ক্যামেরার দিকে অশ্লীল ইঙ্গিত দিয়েছিলেন এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

 

ওই ঘটনায় তিন ম্যাচের নিষেধাজ্ঞাসহ তিন লাখ টাকা জরিমানা গুনতে হয় সাকিবকে।বিশ্বমানের একজন খেলোয়াড় কোন যুক্তিতে ওই কাণ্ডটি করেছিলেন তা মনে করে আজও হতাশ হন সাকিবভক্তরা।সেদিন পাশে বসে সাকিবের এমন কাণ্ডে হেসেছিলেন জাতীয় দলের পেসার শফিউল ইসলাম।

 

যে কারণে ঘটনার শুনানিতে ডাকা হয়েছিল শফিউলকেও।শফিউল কি জবাব দিয়েছিলেন তা ক্রিকেটপ্রেমীরা এতদিন না জানলেও এবার এ নিয়ে মুখ খুললেন তিনি।

 

সম্প্রতি এক ফেসবুক লাইভ চ্যাটে শফিউল বলেন, ব্যাপারটি যে এতদূর গড়াবে তা ভাবিনি আমরা। ওই ঘটনার জন্য সাকিবকে আসলে পুরোপুরি দোষ দেয়া যায় না।

 

আসলে সেদিন সাকিব ভাইয়ের সঙ্গে ক্যামেরাম্যানের ঘাড়ত্যাড়ামো টাইপের আচরণই এ ঘটনার জন্ম দিয়েছে।শফিউল বলেন, ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আউট হয়ে ড্রেসিংরুমে এসে মানসিকভাবে বিরক্ত ছিলেন সাকিব।

 

পাশে বসে আমি সেটি খুব টের পাচ্ছিলাম। সাকিব ভীষণ চিন্তিত ছিলেন ম্যাচ নিয়ে। এ সময় ক্যামেরাম্যান তার সেই অনুভূতি টিভিতে দেখাতে চেয়েছিলেন। এতে সাকিব আরও বিরক্ত হয়ে পড়েন।

 

তিনি ভিডিও করতে নিষেধও করেন ক্যামেরাম্যানকে। তবু তা না শুনে ভিডিও করতে থাকায় সাকিব অমনটা করে বসেন।ইচ্ছা করে নয়; আউট হয়ে যাওয়ার হতাশা আর ম্যাচের উত্তেজনার বশেই সাকিব এমন কাণ্ড করেছিলেন বলে মনে করেন শফিউল।