প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ  পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হলেও পাটুরিয়ায় ঈদে ঘরমুখো যাত্রী ও গাড়ির তেমন চাপ নেই। গত দুই দিন একটি ফেরি দিয়ে রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স পারাপারে সীমাবদ্ধ থাকে।  আজ শুক্রবার ভোররাত থেকে ফেরি চলাচলে শিথিল করে কর্তৃপক্ষ।

 

বর্তমানে ছোট-বড় ছয়টি ফেরি দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স, জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক, ছোট গাড়ি ও যাত্রী পারপার করা হচ্ছে। তবে ঈদে ঘরমুখো যাত্রী ও গাড়ির তেমন চাপ নেই। মাঝে মাঝে মোটরসাইকেলযোগে কিছু যাত্রী ঘাটে আসছে। ঘাট এলাকায় যাত্রী ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ না থাকলেও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জের অংশে যাত্রীর চাপ কিছুটা লক্ষ করা গেছে।

 

ঘাটে যাত্রী ও পণ্যবাহী ট্রাক ও ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ বাড়লে রুটে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হবে বলে ঘাট কর্তৃপক্ষ জানান।বিআইডাব্লিউটিসির পাটুরিয়া ঘাটের ভারপ্রাপ্ত ডিজিএম মো. জিল্লুর রহমানা জানান, গত দুই দিন ২/১টি ফেরি দিয়ে রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স পারাপারে সীমাবদ্ধ থাকলেও আজ থেকে অনেকটা শিথিল করা হয়েছে পারাপারে।

 

জমে থাকা পণ্যবাহী ট্রাকগুলো গত রাতেই পারাপার করা হয়েছে। বর্তমানে ঘাটে ছোট গাড়ি এবং ঘরমুখো যাত্রীর চাপ তেমন নেই। মাঝে মাঝে কিছু যাত্রী মোটরসাইকেলযোগে ঘাটে আসলেও ভিড় নেই। এ নৌ-রুটে ১৬টি ফেরি মধ্যে ১৫টি ফেরি প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি বুঝে এর সংখ্যা বাড়ানো হবে।

 

গণপরিবহন বন্ধ থাকায় আশা করি এবার ঘরমুখো মানুষদের ঘাটে ফেরি জন্য বিড়ম্বনা পোহাতে হবে না। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শিবালয় সার্কেল) তানিয়া সুলতানা জানান, ঘাট দিয়ে শুধুমাত্র অ্যাম্বুলেন্স, পণ্যবাহী ট্রাক, ব্যক্তিগত ছোট গাড়িসহ যাত্রী ছাড়া অন্য কোনো যানবাহন পারাপারে অনুমতি নেই। বর্তমানে ঘাটে কোনোরকম যাত্রী ও গাড়ির জট নেই।