প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ  চুয়াডাঙ্গা তালতলা পশুহাটপাড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে জেসমিন খাতুন (৩০) নামের একজনের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২২ মে) বিকেলে সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

 

মৃত জেসমিন খাতুন চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার তালতলা পশুহাটপাড়ার লাল চাঁদের স্ত্রী।জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে লাল চাঁদ বাড়িতে ব্যাটারিচালিত রিক্সার চার্জ দিয়ে রাখেন।

 

এ সময় তার স্ত্রী জেসমিন খাতুন বিদ্যুতের তার খুলতে গেলে অসাবধানতাবশত বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

 

স্বজনরা বিকেলে মরদেহ ফিরিয়ে নিয়ে যায় বাড়িতে। তাদের দাবি, বাড়িতে নেয়ার পর জেসমিন নড়ে উঠেন। তারপর স্বজনরা পানি ও দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করেন। সন্ধ্যায় আবার সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যায়।

 

কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে পুনরায় মৃত ঘোষণা করলে মরদেহ নিজ গ্রামে ফিরিয়ে নিয়ে আসা হয়।চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শামিম কবীর জানান, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হওয়ার পর ওই নারীকে হাসপাতালে আনা হলে তার ইসিজিসহ অন্যান্য পরীক্ষা করে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হন তারা।

 

পরে লাশ বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পর আবারো হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পুনরায় পরীক্ষা করে দেখা যায় তিনি মৃত।এই চিকিৎসক জানান, ওই নারী আগেই মারা গিয়েছিলেন।

 

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা যাওয়ার কারণে হয়তো বাড়িতে নেয়ার পর তার শরীরের কোনো অংশের মাংসপেশী নড়াচড়া করে থাকতে পারে। আর সেটা দেখেই গ্রামবাসী ধারণা করে থাকতে পারেন যে তিনি বেঁচে আছেন।চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি আবু জিহাদ বলেন, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।