প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ লোকালয়ে দিনেরবেলা চিতাবাঘের পেটে যাওয়া থেকে কোনও রকমে রক্ষা পেলেন এক ব্যক্তি। রাস্তার নজরদারি ক্যামেরায় ধরা পড়ল সেই দৃশ্য। ভারতের হায়দরাবাদ সংলগ্ন কাটেদান এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

 

কিছুদিন কয়েক ধরেই এই চিতাবাঘটি শহরের মানুষের আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানা গেছে।গত বৃহস্পতিবার প্রথম চিতাবাঘটিকে রাস্তার ডিভাইডারের উপর শুয়ে থাকতে দেখা যায়।

 

চিতাবাঘটি জখম অবস্থায় লোকালয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছিল বলে জানা গেছে। অনেকে  চিতাবাঘটিকে দেখতে পেয়ে মোবাইলের ক্যামেরাবন্দিও করেন। এমননকি, বনদফতরেও খবর যায়।

 

বনকর্মীরা চিতাবাঘটিকে ধরার জন্য যেখানে যেখানে সেটিকে দেখা গেছে, সেই সব এলাকায় খুঁজতে থাকেন। এরই মাঝে গত শনিবার এক ট্রাক সাফাই কর্মীকে আক্রমণ করে বসে চিতাবাঘটি। নজরদারি ক্যামেরায় সেই দৃশ্য ধরা পড়ে।

 

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটি প্রায় ফাঁকা গলির মতো এলাকা। একদিকে কয়েকটি ট্রাক দাঁড়িয়ে রয়েছে। হঠাৎই এক ব্যক্তি দৌড়ে গিয়ে একটি ট্রাকের ভিতর ঢুকে পড়েন। আর এক ব্যক্তিও তাঁর পিছু পিছু সেই ট্রাকে উঠতে যান।

 

কিন্তু ততক্ষণে কাছে চলে এসেছে  চিতাবাঘটি। তাঁর পায়ে কামড়ে ধরেও ফেলে সেটি। কিন্তু কোনও রকমে  চিতাবাঘের মুখ থেকে নিজের পা ছাড়িয়ে নেন তিনি। এবার  চিতাবাঘটি পালানোর চেষ্টা করতে থাকে।

 

কিন্তু গলির দু’দিক ঘেরা থাকায় সে পালানোর পথ খুঁজে পায় না। ইতিমধ্যে গলির ছ’টি কুকুর তাকে ঘিরে ফেলে। প্রথমে তারাও বুঝতে পারেনি, কে ঢুকে পড়েছে তাদের এলাকায়। কুকুরগুলি  চিতাবাঘটির দিকে আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে এগিয়ে যায়।

 

পাল্টা হুঙ্কার দিয়ে কুকুরগুলির দিকে তেড়ে যায়  চিতাবাঘটিও। এবার ভয়ে পিছিয়ে যায় কুকুরগুলি।জানা গেছে, স্থানীয়রা চিতাবাঘটিকে কিছুটা দূর থেকে ভিড় করে দাঁড়িয়ে দেখছিলেন, ছবি তুলছিলেন।

 

সেই সময় তাদের দিকে তেড়ে যায়  চিতাবাঘটি। সবাই ভয়ে দৌড়তে থাকেন। তাদের মধ্যেই এই দুই ব্যক্তিও ছিলেন।  চিতাবাঘটি তাদের দিকেই দৌড়ে আসে। চিতাবাঘটিকে খুঁজে বের করে খাঁচাবন্দি করার চেষ্টা করে বনকর্মীদের একটি বড় দল।

 

কিন্তু সেটিকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। বনকর্মীরা মনে করেছেন, সেটি সামনের জঙ্গলে ঢুকে গেছে।

সূত্র: আনন্দবাজার।