প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ  বিশ্বজুড়ে চলমান মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপে কাঁপছে বিশ্ব। বিশ্বব্যাপী প্রতিদিন মারা যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। প্রায় ৫ মাস পেরিয়ে গেছে এই ভাইরাসের প্রকোপ; এখনো ভাইরাস প্রতিরোধে কোন কার্যকর ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে পারেনি বিশ্ববাসী।

 

উদ্বেগ নিয়ে অজানা ভাইরাসের বিরুদ্ধে বিশ্ব লড়াই করছে। বিভিন্ন দেশ কার্যকর ভ্যাকসিন আবিষ্কারের চেষ্টায় গবেষণা অব্যাহত রেখেছে।এরমধ্যে দেখা দিয়েছে নতুন উদ্বেগ। নতুন একটি অজানা ভাইরাস।

 

এই ভাইরাসের প্রকোপে পড়েছে ঘোড়া। থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংকক থেকে ১০০ মাইল দূরে অবস্থিত একটি খামারে হঠাত্ করেই ঘোড়াদের মৃত্যু হতে থাকে। পরীক্ষায় ধরা পড়ে এক অজানা ভাইরাসের অস্তিত্ব।

 

একে তো করোনা মহামারীতে জেরবার সারা বিশ্ব। তার মধ্যে নতুন এই ভাইরাসের হানা চিন্তা বাড়িয়েছে থাইল্যান্ডে।৯ দিনে ১৮টি ঘোড়ার মৃত্যু। খামারের মালিক ভেবেছিলেন, করোনাভাইরাস হানা দিয়েছে।

 

তাই মৃত ঘোড়াগুলির পরীক্ষা হয়। কিন্তু তাদের শরীরে করোনার অস্তিত্ব মেলেনি। বরং এক অজানা ভাইরাসের হানায় মারা গিয়েছে ঘোড়াগুলি। থাআর এবারও এই অজানা ভাইরাসের উত্স বাদুড় বলে মনে করা হচ্ছে।

 

আবার কেউ কেউ জানিয়েছেন, চিন থেকে আসা একটি জেব্রা থেকে এই অজানা ভাইরাস থাইল্যান্ডে ছড়িয়েছে।থাইল্যান্ডের ওই খামারের মালিক নোপাদল সারোপালা জানিয়েছেন, ঘোড়াগুলি হঠাত্ করেই অসুস্থ হয়ে পড়ছিল।

 

তার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ছিল। পরে পরীক্ষা করে জানা যায়, কোনও এক অজানা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় ঘোড়াগুলি। এদিকে, ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ব্রিটেনে বহু ঘোড়া অজানা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে।

 

এরই মধ্যে ৫০০—র বেশি ঘোড়া মারা গিয়েছে সেখানে। আফ্রিকার ঘোড়াদের অসুখের সঙ্গে এই ঘোড়াগুলির উপসর্গের মিল রয়েছে। আফ্রিকার ঘোড়া ও জেব্রার মধ্যে সাধারণত এই একই রোগ হয়।

 

কয়েক যুগ ধরে আফ্রিকাতে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে বহু ঘোড়া মারা গিয়েছে। তবে এতদিন সেই রোগ আফ্রিকার বাইরে ছড়ায়নি।বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ঘোড়ার মধ্যে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস থেকে মানুষের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম। তবে এই অজানা ভাইরাস আচমকাই বহু ঘোড়ার প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে। যা কি না উদ্বেগের বিষয়।