প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :হঠাৎ শারীরিক মেলামেশা বন্ধ করলে মেয়েদের যে সমস্যাগুলি হবে- স্বামীবিয়োগ, বিবাহবিচ্ছেদ, ব্রেকআপ বা অন্য শহরে চাকরি, এধরনের নানাবিধ কারণে শারীরিক মেলামেশা এই ব্যাপারটি হারিয়ে যেতে পারে নারীর জীবন থেকে।

এতে অনেক সময় ক্ষতিগ্রস্থ হয় নারীশরীর। মানসিক দিক থেকে সুখ ও শান্তি চলে যায়। অনেক সমস্যা দেখা দেয়। তবে কিছু ক্ষেত্রে ভালোও হয়। ভালো-মন্দ মিলিয়ে শারীরিক মেলামেশা বন্ধ হওয়ার কারণে কী কী পরিবর্তন আসে জেনে নিন –

 

 

 

 

* আগের চেয়ে অনেক বেশি উতলা করে তোলে : আমরা সবাই জানি, যৌনতা হতাশা, হাঁহুতাশ মেটাতে সাহায্য করে। কিন্তু কোনও অজ্ঞাত কারণে যদি নারীর জীবনে শারীরিক মেলামেশার চ্যাপ্টার বন্ধ হয়ে যায়, তবে মানসিক সমস্যা তৈরি হতে পারে।

কথায় কথায় মন খারাপ, কিছু ভালো না লাগা, কারণে অকারণে অতিরিক্ত রাগ জন্মাতে শুরু হতে পারে। মানুষের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করতেও শুরু করে দিতে পারেন সেই নারী।

স্কটিশ গবেষকদের পরীক্ষায় জানা যায়, শারীরিক মেলামেশা বন্ধ হয়ে গেছে এমন মহিলাদের নাকি লোকের সঙ্গে কথা বলতেও অসুবিধে হয়। এর কারণ, শারীরিক মেলামেশা করার সময় মস্তিষ্ক থেকে যে ফিল গুড কেমিক্যাল এন্ডোর্ফিন ও অক্সিটোসিন নিঃসরিত হয়, তা বন্ধ হয়ে যাওয়া।

 

 

 

 

 

* ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন (UTI) হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায় : শারীরিক মেলামেশার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মূত্রনালীতে সংক্রমণ হতে পারে। প্রস্রাবের সময় জ্বালা-যন্ত্রণা শুরু হতে পারে তখন। কিন্তু শারীরিক মেলামেশা করা বন্ধ হয়ে গেলে ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশনের সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায়।

* সর্দি কাশি প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় : শারীরিক মেলামেশা করলে শরীরে রোগ-জীবাণুর প্রবেশ কষ্টকর হয়ে ওঠে। অর্থাৎ, শরীরে রোগপ্রতিরোধ শক্তি গড়ে ওঠে।

 

 

 

 

 

পেনসিলভেনিয়ার উইলকিস-বারে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মত, সপ্তাহে অন্তত দু’বার শারীরিক মেলামেশা করলে ইমিউনোগ্লোবিন অ (ছোটো করে বললে, ওমঅ এই হরমোনের নিঃসরণ শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়) হরমোনের পরিমাণ ৩০% বাড়িয়ে দিতে পারে।

ফলে সর্দি, কাশি, জ্বর হওয়ার প্রবণতা কমে যায়। কিন্তু শারীরিক মেলামেশা করা হঠাৎ বন্ধ হয়ে গেলে কমজোরি হয়ে পড়ে নারীশরীর। সর্দি, কাশির সমস্যা শুরু হয়।

* হৃদয় হার মানতে শুরু করে হরমোনের কাছে : দেশ-বিদেশের বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা বলছে, শারীরিক মেলামেশা করলে হৃদয় ভালো থাকে। হরমোনের নিঃসরণ যথাযথ পরিমাণে হতে থাকে।

 

 

 

 

 

কিন্তু অনেকদিন শারীরিক মেলামেশা বন্ধ থাকলে হৃদযন্ত্রে নেতিবাচক সমস্যা তৈরি করতে পারে। শরীর কমজোরি হয়ে পড়ে। নিয়মিত এক্সারসাইজ় করলে বা ট্রেডমিলে দৌড়ালেও লাভ হয় না।

* শারীরিক মেলামেশা করার ইচ্ছে চলে যেতে পারে : যাঁরা মনে করেন, নিয়মিত শারীরিক মেলামেশা করার অভ্যাসে একবার দাঁড়ি বসলে, কামনা-বাসনার লাগাম ছাড়িয়ে যায়। তা হলে তাঁরা ভুল জানেন।

 

 

 

 

 

মেলামেশা করা হঠাৎ বন্ধ হয়ে গেলে, মিলিত হওয়ার বাসনা কমে যায়। এটা মহিলাদের ক্ষেত্রে বেশি প্রযোজ্য। শরীরে উত্তেজনা লোপ পেতে শুরু করে। একটা সময় পর আর কামেচ্ছা জাগে না।

* বুদ্ধি কমে যায় : নিয়মিত শারীরিক মেলামেশা করা শুরু করলে, সেটা যদি হঠাৎ বন্ধ হয় যায়, তবে বুদ্ধি লোপ পেতে পারে। সারাক্ষণের ক্লান্তি, হতাশা মস্তিষ্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

যার ফলে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হয় স্মরণশক্তি। সবকিছু ভুলে যাওয়ার সমস্যা তৈরি হতে থাকে। আর এর জন্য দায়ি একমাত্র শারীরিক মেলামেশা থেমে যাওয়া।

এই বিভাগের আরো খবর :

জার্মানির শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ন; চমক দিল বেলজিয়াম!
ধানের শীষের জোয়ার দেখে ক্ষমতাসীনরা দিশেহারা হয়ে বিভিন্ন স্থানে বিএনপির প্রচারে হামলা চালাচ্ছে
মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৮ হাজার ফ্ল্যাট
যাত্রীবাহী বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ১০
সন্তানের সঙ্গে নির্মম বিচ্ছেদ ভাইরাসের কারণে!
অবশ্যই দণ্ডিত হতে হবে ডিআইজি মিজানকে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ঝিকরগাছার গদখালীতে পৌষমেলা শুরু
সমাবেশ নিয়ে কোনো নাটক নয়, বিএনপিকে ওবায়দুল কাদের
জিম্বাবুয়ের বিশ্বকাপ স্বপ্ন শেষ
দুবাইয়ের আল জারুনি মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত সাংবাদিক মাহাবুব
খানসামায় আনন্দ শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠতি
নতুন বছরে সফল হতে ৮ ধরনের বিষাক্ত লোককে ত্যাগ করুন
বোলারদের নৈপূণ্যে রূপগঞ্জের জয়
নোবিপ্রবি’র সেই তিন ছাত্রীকে হল থেকে বহিষ্কার
ফুলকপির বিরিয়ানি