প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট : মানুষ প্রতিনিয়ত জীবনের নানা সমস্যা মোকাবেলা করে চলেছে। অনেক সময় এসব সমস্যা না বলা কথা হয়েই থাকে। ধীরে ধীরে যা ভেতরটা শেষ করে দেয়। অথচ স্বজন বা আশপাশের মানুষের সঙ্গে একটু আলোচনা করলেই হয়তো সমাধান মেলে। যদি নাই বলতে চান, তবে ভরসা রাখতে পারে বিশেষজ্ঞের ওপর। এমনই এক সমস্যার কথা তুলে ধরেছেন একজন। সমাধানের চেষ্টা করেছেন বিশেষজ্ঞ। এখানে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নারীর যন্ত্রণাকারত অবস্থার সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করেছেন মনোবিজ্ঞানী।

 

 

 

প্রশ্ন : আগামী দুই মাসের মধ্যেই আমার বিয়ে। আমি একজন নারী। তাই আমার মনে কী আছে তা পরিবারের কাউকে বলতে পারছি না। আমার মনে হয় না, যে ছেলেটির সঙ্গে আমার বিয়ে হতে যাচ্ছে তাকে কোনদিন ভালোবাসতে পারবো। কিন্তু সে নিতান্তই ভদ্রলোক। গত ১০ মাস ধরে তার সঙ্গে আমার কথা বলার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

একে অপরকে চেনা-জানার এ সুযোগ দিয়েছেন অভিভাবকরা। আমি এক মুহূর্তের জন্যেও তার প্রতি বিন্দুমাত্র আকর্ষণবোধ করিনি। মনে প্রেম জাগলে যে প্রজাপতি ওড়ে, তা কখনোই ঘটেনি। আবারো বলছি, সে ভালো এক মানুষ। কিন্তু আমার জোরালোভাবে মনে হচ্ছে, এই মানুষটির সঙ্গে আমি সুখী হতে পারবো না। আমার কি এখন এই বিয়েটা না করা উচিত?

 

 

 

 

বিশেষজ্ঞের জবাব : প্রথমত, বিয়ের খবর দুই পরিবারের জন্যেই সুখকর। বোঝা যাচ্ছে যে, আপনি আসলে এই বিয়ে নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন। ছেলেটাকে বিয়ে করবেন কিনা তা বুঝতে পারছেন না। তবে তাকে ভালোবাসতে না পারলেও আশা করি ভালো মানুষ হিসেবে তার প্রতি আপনার শ্রদ্ধাবোধ থাকবে।

 

 

 

 

আর তা আছেও বলে জানিয়েছেন আপনি। আসলে ভালোবাসা এমন এক বিষয় যা কারো মনে হঠাৎ করে আসে। আবার কারো আসতে সময় লাগে। সপ্তাহ, মাস বা বছর ঘুরে যেতে পারে। আসলে বিষয়টা নির্ভর করে আপনি মানুষটার প্রতি কতটা শ্রদ্ধাবোধ রাখছেন তার ওপর।

 

 

 

 

আপনি প্রেমে পড়লে দেহ-মনে-প্রাণে যে প্রজাপতি ওড়ার কথা বলছেন, এটা সব ক্ষেত্রে সঠিক নয়। আসলে বিয়ে মানেই এখানে কেবল প্রেম নয়, ভবিষ্যত নিয়ে সামান্য হলেও দ্বিধা-দ্বন্দ্ব কাজ করে। কাজেই এ সময় অনেকের মনের অবস্থাই আপনার মতো হতে পারে। মানুষটিকে ভালোবাসা যায় কিনা তার চেয়ে মনে বেশি কাজ করছে ভবিষ্যত নিয়ে। কিন্তু মানুষ হিসেবে তার জন্যে আপনার মনে শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে। এটা বড় বিষয়।

 

 

 

 

তবে এ মানুষটাকে নিয়ে আপনি গবেষণা চালাতে থাকুন। প্রয়োজনে এগুলো লিখে রাখুন। এতে অনেক কিছু বেশি পরিষ্কার হয়ে আসবে। যদি কোনো সমস্যা মনে হয় তো বিশেষজ্ঞের সঙ্গে আলাপ করতে পারেন। এমনও হতে পারে যে আপনি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ভাবেন। সে ক্ষেত্রে একজন থেরাপিস্ট আপনার সমস্যা দূর করতে পারবেন।

 

 

 

কাজেই তাকে আপনি ভালোবাসতে পারবেন না কিংবা সুখী হতে পারবেন না এসব কথা চিন্তা থেকে ঝেরে ফেলুন। অপেক্ষা করতে থাকুন। কোনো সমস্যা আছে মনে হলে তা অভিজ্ঞজন কিংবা বিশেষজ্ঞের সঙ্গে শেয়ার করুন। মনের সব ভয় চলে যাবে।